Categories
Productions

Live Video Studio Rental in Chittagong

Now you can rent our Live Video Studio in Chittagong for your YouTube Channel or Facebook Page Live Video! We have two magnnificent Live Studio in Chittagong equipped with State of the art technology and equipment. From our Live Studio, you can braodcast from High Definition to Ultra High Definition to any Website or Facebook Page or YouTube Channel.

We have created some streamline package for the people who want to rent our live studios! All the Live Production Switcher & Cameras are International Broadcast Standard. We have Fixed sets for Live Programs. According to client’s requirement, additional set can be made as well.

Package Name (Live) HDQualityPackage Price
1-Camera Live (1 Hour)HDTk. 12,999/=
2 Camera Live (1 Hour)HDTk. 22,999/=
3-Camera Live (1 Hour)HDTk. 32,999/=
4-Camera Live (1 Hour)HDTk. 42,999/=
Package Name (Live) 4KQualityPackage Price
1-Camera Live (1 Hour)UltraHDTk. 16,999/=
2 Camera Live (1 Hour)UltraHDTk. 26,999/=
3-Camera Live (1 Hour)UltraHDTk. 36,999/=
4-Camera Live (1 Hour)UltraHDTk. 46,999/=

If you are interested, contact our Studio Hotline at 01305554559 or email us at info@nahidrains.pictures

  • We have very strict policy on what kind of Live Content we can broadcast. Everyone has to comply with our policies and Facebook’s or YouTube’s Community Guidelines.
  • We do not provide any recorded version for the Live Video Broadcast.
  • We do not broadcast any Live Video of our clients on our Facebook Page or YouTube Channels.
  • We follow the policy of First Come First Serve. So, please book an appointment with us before you plan in advance. Our hotline numbers are open from Saturday to Thursday from 11:00 AM to 7:00 PM. In case we are not available on the phone, please email us.
Categories
Tech Videos

NahidRains’s Studio Tour 2020

Lets do a quick tour of my studio! How I work and my work. Uploaded this video on my new YouTube channel as well. So don’t forget to subscribe.

Categories
Journals

The Economy Behind Waz Mahfil

Oops! I am not done yet about my Online Protest Campaign yet! Whatever everyone saw on Social Networks from Janurary 2020 to February 2020, was just part #1 and the real problems aren’t solved yet. With my protest campaign I just introduced to rogue and fraud Scholars who calls themselves Islamic Scholars but in the shadow of religious activities, they were only spreading extremism. But detecting them or knowing them only isn’t the solution. It is just part of a solution to a much bigger problems.

Did you notice YouTube or Facebook home page in the past 6 months? Did you see what’s popular in Bangladesh or what is always trending? Well that’s a clue for the next part of my campaign. I took few days off from all kinds of social networks like Facebook or YouTube not just because of the spamming and threats but also to work on something that I have been thinking of doing for a long time. Did you read the title of this journal entry “The Economy Behind Waz Mahfil”? It is actually the name of my upcoming documentary production which will be released online. Even though, I don’t have a particular YouTube Channel, I might just release it in any of my existing YouTube channel or in my Facebook page but surely enough that documentary will be available in this website.

So, I have been taking a break to work on this particular documentary and I think it is important. We need to to dig deeper in order to find the real reasons of what is happening in Bangladesh and why there is a sudden boom of Religious Business selling the Religious Sentiments. I will be posting regular updates on my works and anything else on this site as well. So my request to my fans, followers or audience is, if you don’t see any update from me on Facebook, it means I am not being active there. And if you really need any updates, come to this website and check out what is new. But do not consume those fake news regarding the name “nahidrains”.

Categories
Human Rights

The Violations of Human Rights by Facebook

It hasn’t been very long Bangladesh shining through the blessing of Information Technology and a major part of us is actually Social Networks – specifically Facebook & YouTube.

Over 80 million people having access to Internet, Bangladesh is a very big market for Social Network Companies although companies like Facebook or YouTube always underestimated the Bangladeshi Market publicly for some strange reason. But it is very obvious they have been earning a big amount of money through their sites in Bangladesh. So far these companies never opened any office in Bangladesh and thus there is no actual support for this platforms that is dedicated to the local users.

With its blessing, Social Network mostly caused Bangladesh major troubles. I don’t really much of the good sides of Facebook or YouTube in Bangladesh. I only notice more and more abuse everyday. Facebook or YouTube is the main source of rumours and religious ridiculous rumours in Bangladesh that have been divine the people of the region in a very extreme way. These platforms hardly removed these fake news sometimes and often they remove the real ones in fact! There are thousands if not millions of instances where such thing happened.

People now a days only consume news on the social networks rather than checking out a real newspaper website or even people hardly visit any website. They only goes to any website of the links are shared on these platforms or probably google it.

But the underlying problem isn’t the fact that people not getting truthful news but it’s the fact that our dependency on Social Networks. And companies like Facebook or YouTube are controlled by these private entities and they actually can control we will consume or watch or read. It is completely under their control. They can literally push up a video they want or take it down if they don’t like. Even the Facebook or YouTube or such platforms were launched for connectivity and freedom of speech in mind but is it really freedom of speech? Or it is the freedom of some particular speech? Can anyone guarantee it with evidence ? I am sure no one can.

Everyday we are just giving out ourself very openly to these platforms a bit by a bit. Imagine, Facebook already knows almost everything about us who has an account on Facebook. Even they have our National IDs and many other details. Over the past decades they have collected so much data on us that they can easily now control our life. And we have been so dependent on them for communication, being social, business, creativity and everything that if Facebook just simple decide to block you for few days on their platform, you can’t even communicate with anyone. For example Facebook Messenger. I am sure this messenger is a main communication tools for many! Imagine you suddenly got a community violation block on your account and barred for 7 days from using Facebook which means you can’t post anything, cannot use messenger and cannot ever like or comment on a post. Even, you can block anyone on Facebook is they are harassing you. Unbelievable right? Well(, this is actually Facebook’s basic community violation policy. Sort of a punishment. But Facebook’s community violation detection system is extremely poor. You will mostly barred from thugs that you haven’t really done and Facebook owns you in such a way that they can decide whether you can talk or not or communicate with your friends or not. But when they advertise, they show it is the best tool for communication but what they don’t show is, they also control your communication when you become very dependent on it. You could have other means of communication but since Facebook created so good features for you, you just became dependent on it. Isn’t it a complete violations of Basic Human Rights if Facebook blocks you from communication? You are not a prisoner !

Facebook can also decides what you can see and what you cannot. It is based on their algorithms and what that algorithm does often time? We have seen US election last time right? Similar things are happening everywhere ok Facebook actually. Even in countries like Bangladesh! I can give 100s of proofs that Facebook have been supporting anti-Bangladesh, pro-terrorism minded people on Facebook in a very disguise way. Literally there are thousands of proofs.

Because of people’s lack of enough knowledge on such stuffs, no one is actually noticing it but it is happening as we speak.

We should start using Facebook or similar social platforms less and less as soon as possible before they start controlling your Bedrooms or Bathrooms even. I am sure there are instances, they are able to decide whether you will die or live. Don’t trust me? Well, few weeks ago, I was threatened on Facebook by some Terrorist group. So as an ordinary Facebook users I reported the post following the procedure that Facebook has now. But Facebook said “the post doesn’t violates any community policy”. So what happened next is, since I was worried, so I took a screen shots of those threat posts and posted in my Facebook page to make sure Law Enforcement agencies know Bangladesh sees it and I can get a bit of assurance as well. But guess what ! Facebook removed those post immediately because it didn’t follow their community guidelines! So it means, Facebook decided who should live and who should die by a simple thing. As a result of that removal, the security concern was never seen by others who can provide me security but also that removals directly supported those terrorists so decisively and thus made my life more insecure and risky. So, if those terrorists now gets encouragement by this and come and shoot me, Facebook will take responsibility? I don’t think so.

This is just one small example. I have been studying these stuffs on the social platforms and I have thousands of instances. So, what is the safeguard of ordinary people from these companies and their bad decisions? Anyone?

Categories
Journals

নাহিদরেইন্স কোথায়?

ভণ্ড হুজুরদের ধরিয়ে দেবার পর আমাকে অর্থাৎ নাহিদরেইন্সকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না! অথবা “নাহিদরেইন্স সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে” অথবা “খুন হয়েছে” ইত্যাদি গুজব যখন একটু একটু করে মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে, তখন আমার এই পুরাতন ওয়েবসাইটখানা আবার চালু করলাম – কিছু আপডেট দেয়ার জন্য।

আমি বেঁচে আছি, বহাল তবিয়তে আছি। Basically, I am taking a nap। অনেক বড় কাজ করেছি তো, এখন একটু রেস্ট নেয়ার টাইম। হালকা ঘুমিয়ে আবার উঠে পড়ব। ব্যাকগ্রাউন্ডে নতুন ঝরের প্রস্তুতি চলছে। মুভি তো এখনও শেষ হয় নাই। মূলত ব্যাকগ্রাউন্ডে পার্ট টু চলছে। ঘুম যখন ভাঙবে তখন আবার চলে আসব।

অতএব গুজব থেকে দূরে থাকুন আর কোন আপডেটের দরকার হলে এই ওয়েবসাইটে ঢু মেরে যাবেন। ভাল থাকুন!

Categories
Business using Religion

বিতর্কিত ইসলামিক বক্তাদের অনুসারীদের মুখের ভাষা এত খারাপ কেন

বাংলাদেশে বিতর্কিত কিছু ইসলামিক বক্তা আছেন যাদের আছে লক্ষ অনুসারী। ফেসবুক এবং ইউটিউবে তাদের আছে বেশ দাপুটে অবচারন। তবে দাপটটা একটু অন্য জায়গায়। নাহিদরেইন্সের প্রটেস্ট ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে বাংলাদেশের এসব বিতর্কিত ইসলামিক বক্তাদের পরিচয় ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর দেশের সচেতন মহল এখন নতুন কিছু ঘরানার মানুষের সাথে পরিচিত হচ্ছে। এরা হচ্ছে বাংলাদেশের স্যোশাল নেটওয়ার্কের ক্ষুদ্র একটা অংশ কিন্তু বেশ সংঘবদ্ধ। এদের কাজ হলো যখনই এধরনের কোন ভন্ড ধরা পড়ে অথবা জামাত-শিবির পন্থীদের কোন কুকুর্ম সামনে চলে আসে অথবা বিএনপি মনা লোকজন যখন বেফাস কাজ-কারবার করে বসেন, তখন মানুষের ফেসবুক বা ইউটিউব পোস্টে এদের দেখা পাওয়া যায়। অক্তহ্য গালিগালাজের মাধ্যমে এরা মানুষকে থামানোর চেষ্টা করে যাতে করে এধরনের কোন পোস্ট আর কেউ দিতে না পারে অথবা উদ্ভট সব পরিস্থিতি করে মূল ঘটনা ডাইভার্ট করার চেষ্টা করে। 

এরা আসলে কারা? 

একটু ঘেটে দেখলে বুঝা যায় এদের ফেসবুক বা ইউটিউব একাউন্ট গুলো খুব একটা পুরনো না। নানা ধরনের বিভ্রান্তিমূলক পোস্টে ভরা এদের ওয়াল। কিন্তু প্রোফাইলের তথ্যে দেয়া থাকে নানা রকমের ইসলামিক বাণি। বেশীরভাগ সময় এদের ফেসবুক ছবিগুলো ভুয়া হয়ে থাকে। তবে কিছু আছে যারা নিজেদের ছবি দিয়েই এসব কার্যক্রম চালায়। এরকম শতখানেক গালিবাজ একাউন্ট ঘেটে দেখার পর আমি এদের মধ্যে কিছু মিল খুজে পেয়েছি। এরা সবাই বিশেষ কিছু ফেসবুক গ্রুপের মেম্বার বা পেজকে ফলো করে। নীচের গুলো খুবই কমন।। 

  • জামাতের বাশের কেল্লা পেইজ এবং গ্রুপ। 
  • কোটা সংস্কারের ফেসবুক গ্রুপ। 
  • রাজাকার সাঈদীকে নিয়ে নানা ধরনের পেজ। 
  • বিতর্কিত ইসলামিক বক্তাদের ফেসবুক গ্রুপ এবং পেজ। 
  • নানা ধরনের অশ্লীল ফেসবুক পেজ এবং গ্রুপ। 

এরা কিভাবে কাজ করে? 

মূলত এরা কিছু ফেসবুক গোপন গ্রুপের সাথে জড়িত আর এখানেই তারা সংঘবদ্ধ হয়। আর এসব গ্রুপ থেকেই তাদের অনলাইন “অপারেশন” পরিচালনা করা হয়। এদের টার্গেট থাকে খুব স্পেসিফিক। সংঘবদ্ধভাবে এরা নানা ধরনের পোস্টে গিয়ে কমেন্ট করতে থাকে আর একই সাথে গুজব ছড়াতে থাকে। এদের কমেন্টগুলো মূলত ভর্তি থাকে অকথ্য গালিগালাজে। উদ্দেশ্য একটাই – পোস্টদাতাকে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত করে থামানো। মাঝে মাঝে সফল হয় মাঝে মাঝে তাদের সব চেষ্টা বিফলে যায়। আর একই সাথে গুজব ক্যাম্পেইনও আছে। 

মূলত তাদের এধরনের অনলাইন আক্রমনগুলো মুলত জামাত-শিবিরের ক্লাসিক অনলাইন ক্যাম্পেইন বলা যেতে পারে যা আমরা অতীতে বহুবার দেখেছি। এবং এরা যে বিনামূল্যে এসব করে তা না! সম্ভবত তাদের কোন পেমেন্ট স্কিম আছে এবং এধরনের অনলাইন কীবোর্ড সন্ত্রাস করে এরা সম্ভবত টাকা অর্জন করে যদিও খুব অল্প পরিমানে। এক্ষেত্রে মূলত অনলাইন স্ক্যামিং এর দৃষ্টান্ত অনুসরন করছে বলা যায়। অনেক আগে অনলাইন স্ক্যাম ইমেইল পাঠানোর জন্য, প্রতি ১০০ টি ইমেইলের জন্য ১ ডলার করে দেয়া হতো আফ্রিকার গরীব কিছু দেশে। সেই একই বিজনেস মডেল ফলো করে বাংলাদেশেও গড়ে উঠেছে ফেসবুক আর ইউটিউব কেন্দ্রিক একটি সিন্ডিকেট যারা মূলত পরিচালিত হয় জামাত-শিবির দ্বারা। নাহিদরেইন্সের ভন্ড হুজুর বিরোধী ক্যাম্পেইনে এরা খুব নড়েচড়ে বসেছিল আর সম্ভবত সর্বশক্তি দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা করে যাচ্ছিল – যা এখন পর্যন্ত বিদ্যমান আছে কিন্তু হালে পানি পাচ্ছে না। 

নাহিদরেইন্স যাদের মূলত হাতে নাতে ধরেছে তারা হলেন তারেক মনোয়ার এবং মিজানুর রহমান আজহারী যাদেরকে আসলে গোপনে সবাই বলে সাঈদী ২.০ এবং সাঈদী ৩.০। আর এদের অবস্থানই একেবারে নড়বড়ে হয়ে উঠে গেছে এমন একটা সময়ে যখন তারা শুধু উপরের দিকে উঠছিল। ঠিক এমন সময়ে নাহিদরেইন্স তাদের বাড়া ভাতে পানি ঢেলে দেয়। যার কারনে একেবারে মরিয়া হয়ে উঠেছে তাদের অনলাইন উইং। 

তাদের এই হাল কেন? 

এসমস্ত বিতর্কিত ইসলামিক বক্তারাই আসলে ব্রেইনওয়াশের মাধ্যমে এসব অনলাইন গালিবাজকে সৃষ্টি করেছেন নানা ধরনের প্রপাগান্ডা চালানোর জন্য। আসলে এগুলো হলো অনেক বছরের ব্রেইনওয়াশের ফসল। এদের চোখের সামনে যদি সত্যটাও তুলে ধরা হয়, তাও এরা “তাল গাছ আমার” বলে চলতে থাকবে আর নিজেদের অনলাইন অপারেশন চালিয়ে যাবে। তার মধ্যে বড় একটা অংশ আবার কিছু টাকা অর্জন করছে এসবের মাধ্যমে। এদের রয়েছে বেশ কিছু ফেসবুক আর ইউটিউব চ্যানেল যেগুলোর মাধ্যমে এরা নানা ধরনের গুজব ছড়ায় যখন প্রয়োজন হয় আর বাকী সময় নানা ধরনের অশ্লীল পোস্ট শেয়ার করতে থাকে নিউজের নামে। RTNews24 বা awaajbd এই পেজগুলো বা অনলাইন ভুয়া পত্রিকাগুলো এগুলোর উতকৃষ্ট উদাহরন। সেই সাথে আছে কোটা সংস্কার গ্রুপ আর মাঝে মাঝে ভাড়ায় খাটা সালমান মুক্তাদির এর মত অশ্লীল ইউটিউবাররাও যাদেরকে সামান্য কিছু টাকা দিলেই যেকোন কিছু শেয়ার করে দিবে। নিরাপদ সড়ক আন্দোলন আর নির্বাচনের সময় এই সালমান মুক্তাদিরের ফেসবুক পেজ এবং প্রোফাইল থেকেই শেয়ার করা হয়েছিল অনেক গুজব। একারনে তাকে “ডিম থেরাপি” দেয়া হয়েছিল বলেও ধারনা করা হয়। 

তবে বাংলাদেশে এখন সচেতন মানুষের সংখ্যা অনেক। আর এইসব সচেতন মানুষরাই উলটো এসব অনলাইন সন্ত্রাসীদেরকে এক হাত করে দেখে নিচ্ছে। আগে মানুষ এদের দেখলে এড়িয়ে যেত, কিন্তু মানুষ ধীরে ধীরে মুখ খুলা শুরু করেছে যেটা খুব ইতিবাচক একটি দিক। 

তবে এসব বিতর্কিত ইসলামিক বক্তাদের এসব অন্ধ অনুসারীদের গালিগালাজ ক্যাম্পেইনের দায়ভার এসব বিতর্কিত বক্তাদেরই নিতে হবে। কারন তাদের ব্রেইনওয়াশ তো মুলত করেছে এসব ইসলামি বক্তারা। তাদের সব গালি শিখিয়েছে এসব ইসলামিক বক্তারা। তাই এদের সমস্ত অপারেশনের দায়ভার নিতে হবে এসব ইসলামিক বক্তাদের। এ দায় তারা কোনভাবেই এড়াতে পারবেন না। নিজেদের মিথ্যাচার আর ভন্ডামি ঢাকতে যদি এখন ইসলামিক বক্তারা এসব নোংরামির শরনাপন্ন হন, তাহলে তারা আবার কেমন আলেম? তারা আবার কেমন ওলামা? তার মানে কি তারা তাদের অনুসারীদের নূন্যতম শিক্ষাটাও দিতে পারেন নি? এ প্রশ্নটাই রইল তাদের কাছে। 

Categories
Journals

NahidRains launched new YouTube Channel

We have launched a new YouTube channel only dedicated to Film & Technology. Already a number of tech and film related videos are online in the channel and we are expecting regularly upload videos in the genre in this particular channel.

The new YouTube Channel’s name is “NahidRains Tech & Film“.

Reason for this new Channel is to separate our videos into different Genre and having Different YouTube Channel for different kind of audiences. We will keep uploading our Social / Political videos on our other channel “NahidRains Pictures“.